প্রচ্ছদ আইন-আদালত তারেকের মৃত্যুদণ্ড নয় কেন, খালেদা কেন আসামি না?

তারেকের মৃত্যুদণ্ড নয় কেন, খালেদা কেন আসামি না?

1050
তারেকের মৃত্যুদণ্ড নয় কেন, খালেদা কেন আসামি না?

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার যে রায় ঘোষণা করা হলো, সেখানে তারেক জিয়াসহ ১৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

যে অপরাধ হয়েছে সেই অপরাধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃতুদণ্ড। তারপরও এই রায়ে মৃত্যদণ্ড দেওয়া হয় নাই। যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে তারেক জিয়াকে।

বাংলাদেশের পেনাল কোড দণ্ডবিধি ৩০২ ধারা অনুযায়ী হত্যাকাণ্ড সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণিত হলে তার সাজা মৃত্যুদণ্ড। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত থাকলে তার সাজা যাবজ্জীবন থেকে ১৪ বছর। এই মামলার সাক্ষ্য প্রমাণে তারেক জিয়ার জড়িত থাকার কথা সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণ হওয়ার পরেও তাঁকে কেন যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হলো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে জনমনে।

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় ভুক্তভোগী, নিহতদের পরিবার, আওয়ামী লীগ তারেকের ফাঁসি না হওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলিরা বলেছেন, তারেকের শাস্তি বাড়ানোর জন্য তাঁরা উচ্চ আদালতে আপিল করবেন।

আমিনের প্রশ্ন: খালেদা কেন আসামি না?

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার অন্যতম আসামি মেজর জেনারেল (অব.) এ. টি. এম আমিন। ঐ ঘটনার সময় আমিন ডিজিএফআইয়ে ছিলেন। গ্রেনেড হামলার ঘটনার পর এই মামলার তদন্তকে অন্যখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টার অভিযোগের আসামি আমিন।

বর্তমানে তিনি দুবাইয়ে একটি বেসরকারি সিকিউরিটি এজেন্সিতে কর্মরত আছেন। দুবাইতে মেজর জেনারেল (অব.) আমিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এই মামলায় খালেদা জিয়া কেন অভিযুক্ত নন সেটাই আমার প্রশ্ন।’ তিনি বলেন, ‘ঘটনার পর এই মামলাকে অন্যখাতে নেওয়ার জন্য যা কিছু করা হয়েছে তাঁর সবই বেগম জিয়ার নির্দেশে এবং আদেশে করা হয়েছে। অথচ তিনিই এই মামলার আসামি নন।’

জেনারেল (অব.) আমিন, বলেন ‘এই মামলায় আমার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।’ ওয়ান ইলেভেনে দুর্দান্ত প্রতাপশালী এই সেনা কর্মকর্তা আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এলে দুবাইতে চলে যান। সেখানেই তিনি স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন।

সম্পাদক/এসটি