প্রচ্ছদ স্বাস্থ্য গর্ভাবস্থায় ভায়াগ্রা পরীক্ষা, মারা গেল ১১ নবজাতক

গর্ভাবস্থায় ভায়াগ্রা পরীক্ষা, মারা গেল ১১ নবজাতক

43
গর্ভাবস্থায় ভায়াগ্রা পরীক্ষা, মারা গেল ১১ নবজাতক

গর্ভের শিশুর বর্ধন বৃদ্ধিতে ভায়াগ্রার কার্যকারিতা নিয়ে চালানো একটি পরীক্ষা শেষে ১১ নবজাতক মারা গেছে। এরপর তৎক্ষণাৎ ওই পরীক্ষা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। নেদারল্যান্ডসে চালানো ওই পরীক্ষায় যেসব গর্ভবতী নারী অংশ নেন, তাদেরকে ওই ট্যাবলেট খেতে দেওয়া হয়েছিল।

ট্যাবলেটের উদ্দেশ্য ছিল তাদের গর্ভের শিশুর শারীরিক বর্ধনে উন্নতি ঘটানো। কারণ ওই শিশুদের নাড়ির বিকাশ ভালো ছিল না। কিন্তু শিশুরা জন্ম নেওয়ার পর দেখা গেছে, রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধিকারী এই ওষুধ তাদের শ্বাসযন্ত্রের মারাত্মক ক্ষতি করেছে। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, পরীক্ষা চলাকালে কোনো ভুল বা ত্রুটি হয়েছে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যায় নি। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কী হয়েছে, তা জানতে পূর্ণ তদন্ত প্রয়োজন।

এর আগে একই ওষুধ যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে পরীক্ষা করা হয়। সেসব পরীক্ষায় এই ওষুধ প্রয়োগে ক্ষতির কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। অবশ্য সেসবের ফলে কোনো উপকারও হয় নি। ২০১০ সালে গবেষকরা বলছিলেন, এই ওষুধ শুধু পরীক্ষামূলক পর্যায়েই ব্যবহার করা উচিত।

প্রসঙ্গত, ভ্রুণের সীমিত বর্ধন হতে পারে নাড়ির সীমিত বিকাশের কারণে। এই গুরুতর সমস্যার কোনো চিকিৎসা বর্তমানে নেই। এই সমস্যার ফলে যথাসময়ের আগেই শিশুর জন্ম হতে পারে। ওজন হতে পারে অনেক কম। এমনকি শিশুর বেঁচে থাকার সম্ভাবনাও থাকে অনেক কম।

গর্ভাবস্থায় শিশুর ওজন বৃদ্ধি বা ডেলিভারির সময় দীর্ঘায়িত করতে পারে, এমন ওষুধ আবিষ্কার করা গেলে এই অসুস্থ শিশুদের অনেক উপকার হতো।

ভায়াগ্রা বিশ্বব্যাপী যৌন উদ্দীপক ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হলেও, গবেষকরা মনে করেন, গর্ভের শিশুদের সীমিত বর্ধনজনিত সমস্যা সমাধানে এই ওষুধ কাজে লাগতে পারে।

নেদারল্যান্ডসে যেই ওষুধের পরীক্ষা চলছিল সেটি ২০২০ সাল পর্যন্ত চলার কথা। দেশটির ১১টি হাসপাতালে এই চিকিৎসা চলছিল। এর মধ্যে আমস্টারডাম ইউনিভার্সিটি মেডিক্যাল সেন্টারও অন্তর্ভূক্ত। এর আওতায় মোট ৯৩ গর্ভবতী নারীকে ভায়াগ্রা (সিল্ডেনাফিল) দেওয়া হয়। অবশিষ্ট ৯০ জনকে কৃত্রিম (ডামি) ওষুধ দেওয়া হয়।

জন্মের পর ২০ শিশুর শ্বাসযন্ত্রে সমস্যা দেখা দেয়। এদের ৩ জনের মা ছিলেন কৃত্রিম ওষুধ গ্রহণকারী দলের। বাকি ১৭ শিশুর মায়েদের সত্যিকার অর্থেই ভায়াগ্রা দেওয়া হয়েছিল, যাদের ১১ জন শ্বাসযন্ত্র জনিত জটিলতায় মারা গেছে।

গর্ভাবস্থায় ভায়াগ্রার কার্যকারিতা নিয়ে যুক্তরাজ্যে যেই পরীক্ষা চালানো হয়েছিল তার নেতৃত্বে ছিলেন লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জার্কো আলফিরভিচ। তার পরীক্ষায় ভায়াগ্রার কোনো উপকারিতা পাওয়া না গেলেও, অপকারিতা পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, ‘নেদারল্যান্ডে চালানো পরীক্ষায় যেই ফলাফল উঠে এসেছে তা অপ্রত্যাশিত। এই পর্যায়ে এসে আরও বোঝার জন্য আমাদের সতর্ক হতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যুক্তরাজ্য এবং অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে যেই দুই দফায় পরীক্ষা চালানো হয় সেখানেই এই জটিলতা দেখা দেয়নি। তাই এখন পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত প্রয়োজন।’