প্রচ্ছদ জীবন-যাপন বাবা-মেয়ের যৌনদৃশ্য ভিডিও করলেন মা!

বাবা-মেয়ের যৌনদৃশ্য ভিডিও করলেন মা!

4213
বাবা-মেয়ের যৌনদৃশ্য ভিডিও করলেন মা!

এটা ভাবলেও দুঃখ লাগে। কি করে নিজের ১৩ বছর বয়সী মেয়ের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে পারে বাবা, আর সেই দৃশ্যটি
কেমনে মা ভিডিও ধারণ করে! যা কিনা ভাবলেই দুঃস্বপ্নের মতো মনে হয়।

তাহলে ঘটনাটি খুলে বলা যাক, মেয়ের বয়স যখন ১৩ বছর, ঠিক সেসময় একদিন স্বামীর সঙ্গে মেয়ের সেক্স ভিডিও ধারণ করেছিলেন মা নিজেই। যদিও এই ঘটনার জন্য ১৯৯৬ সালে শাস্তিও পান ওই দম্পতি।

কিন্তু, দীর্ঘ ২০ বছর পর আমেরিকার একটি জনপ্রিয় টেলিভিশন শো’তে মা ও মেয়ে মুখোমুখি হন। এরপর আর তার মেয়ের চোখে চোখ রাখতে পারেননি মা। এতদিন পর নিজের মেয়েকে দেখেই আত্মবিলাপে ভেঙে পড়লেন মা।

তিনি বলেন, ‘আমার নিজেকে ঘৃণা হয়।’

অপরদিকে, মেয়ে আমান্ডা বলেন, বাবার সঙ্গে যৌন দৃশ্য নিজে হাতে, দাঁড়িয়ে থেকে শুট করেছেন মা। এসময় মা জাস্টিন মাথা তুলে কোনো কথা বলতে পারেননি। চোখের পাতা যেন অনির্দিষ্ট কালের জন্য মৌনতায় জড়িয়েছে নিজেকে, শুধু পানি পড়ছে বৃষ্টির মতো। হাই-রে এ কেমন মা!

টিভি শো’তে মেয়ে আমান্ডা বলেন, আমার নির্মলতা আমার থেকে চুরি করা হয়েছে। আমি সেই পরিবারের সন্তান যার বাবা-মা তাদের সঙ্গেই যৌন কাজ করতে বাধ্য করে। আমার বয়স তখন মাত্র ১৩ বছর। সেই ঘটনার পর কেটে গেছে দীর্ঘ ২০ বছর, এখনো এটা ভাবলেই দুঃস্বপ্ন ফিরে আসে, বর্তমানে আমার বাবা-মা দু’জনই জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন, এখন তারা দু’জনই আমার চোখের সামনে দিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

মেয়ের কথার পর অনুতপ্ত হয়ে মা জাস্টিন বলেন, আমি এই পৃথিবীর সেই হতভাগ্য মা, যে নিজের স্বামীকে নিজের সন্তানের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে দেখেছি।

তিনি আরো বলেন, আমার যদি সে ক্ষমতা থাকত, আমি তাহলে সব ফিরিয়ে দিতাম।

প্রসঙ্গত, জিম ও জাস্টিনের এই জঘন্য অপরাধের শাস্তি হিসেবে ২০ বছরের কারাবাসের নির্দেশ দেন আমেরিকার আদালত। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০১৬ পর্যন্ত জেলে থাকার পর এখন তারা দু’জনই মুক্ত।

মাঠে নেমেই আউট! বিছানায় ভারতীয় পুরুষ কত মিনিটের খেলোয়াড়, অনেক এগিয়ে মেয়েরা

কোন দেশের পুরুষরা বিছানায় কতক্ষণ টিকে থাকে, তা নিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল ‘সসি ডেটস’। ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ব্রিটেন, কানাডা ও আমেরিকায় এই সমীক্ষা চালানো হয়।

বাঘ নয়, সঙ্গিনীর সঙ্গে বিছানায় বিড়ালের মতোই মিইয়ে যায় ভারতীয় পুরুষরা! বড্ড তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যায় তারা। একটি আন্তর্জাতিক সমীক্ষা থেকে এমনই তথ্য মালুম হয়েছে। তুলনায় ভাল অবস্থায় রয়েছে বিদেশি পুরুষরা।

কোন দেশের পুরুষরা বিছানায় কতক্ষণ টিকে থাকে, তা নিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল ‘সসি ডেটস’। ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ব্রিটেন, কানাডা ও আমেরিকায় এই সমীক্ষা চালানো হয়। ৩,৮৩৬ জন নারী-পুরুষকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। মেয়েরা আশা করে, অন্তত ২৫ মিনিট ৫১ সেকেন্ড টিকে থাকবে তার পুরুষসঙ্গী। কিন্তু, ভারতীয় পুরুষরা বিছানায় টিকে থাকে গড়ে ১৫ মিনিট ১৫ সেকেন্ড। অস্ট্রেলিয়ার পুরুষদের ক্ষেত্রে এই সময়সীমা হল ১৬ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড। ব্রিটেন ও কানাডার পুরুষরা টিকে থাকে যথাক্রমে ১৬ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড এবং ১৭ মিনিট। সবচেয়ে দীর্ঘ সময় টিকে থাকে মার্কিন পুরুষরা, ১৭ মিনিট ৫ সেকেন্ড।

সমীক্ষার রিপোর্ট ঘাঁটলে একটা জিনিস পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। তা হল, ভারতীয় পুরুষদের পাশাপাশি বিদেশি পুরুষরাও সঙ্গিনীর প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ। এর ফলে মেয়েদের অর্গাজমের আগেই পুরুষরা রণে ভঙ্গ দেয়। ফলে, মেয়েদের তৃপ্তি হয় না।

সমীক্ষা থেকে আরও জানা যাচ্ছে, ভারতীয় পুরুষরা অল্প বয়সের তুলনায় বেশি বয়সে অর্থাৎ ৪৫-৫০ বছর বয়সে বিছানায় ভাল পারফর্ম করে। বয়স বাড়লে তাদের টিকে থাকার ক্ষমতা বাড়ে। বিদেশি পুরুষরা অবশ্য অল্প বয়স থেকেই বিছানায় ভাল খেলে।

অথচ ভারতীয় মেয়েদের যৌনক্ষুধা কিন্তু বিদেশি মেয়েদের থেকে কোনও অংশে কম নয়। যদিও বিদেশি মেয়েরা যৌনতার চাহিদার কথা স্পষ্টভাবে তাদের স্বামী অথবা বয়ফ্রেন্ডকে বলতে পারে। ভারতীয় মেয়েরা সামাজিক কারণেই তা মুখ ফুটে বলতে কুণ্ঠাবোধ করে। কিন্তু, সেক্স শুরু হয়ে গেলে বিছানায় তারা বাঘিনী হয়ে ওঠে।

সেক্সের ধরনের ক্ষেত্রে পার্থক্য লক্ষণীয়। বিদেশি মেয়েরা ওরাল এবং অ্যানাল সেক্স করতে ব্যাপকভাবে পছন্দ করে। কিন্তু, ভারতীয় মেয়েদের একটা বড় অংশই অ্যানাল সেক্স করতে ঘেন্না পায়। তারা ভ্যাজাইনাল সেক্স নিয়েই সন্তুষ্ট থাকে। এ ছাড়াও সেক্স টয় ব্যবহারের ক্ষেত্রে বিদেশি মেয়েরা ভারতীয় মেয়েদের থেকে অনেক বেশি এগিয়ে। তাই আমেরিকা, ইউরোপের বাজারে সেক্স টয় বিক্রিও হয় প্রচুর পরিমাণে। তুলনায় ভারতের সেক্স টয়ের বাজার এখনও পিছিয়ে রয়েছে।